ওসিসহ ১০ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন



ওসিসহ ১০ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন

আদালত প্রতিবেদক | clock৪:১৮ অপরাহ্ণ, মার্চ ০৪,২০২০

ওসিসহ ১০ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন

শ্লীলতাহানির অভিযোগে দক্ষিণখান থানার ওসিসহ ১০ পুলিশ কর্মকর্তা ও সৎ মায়ের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের আবেদন করা হয়েছে।

ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৫ এর বিচারক সামসুন্নাহারের আদালতে বুধবার এ আবেদন করেন ৪৩ বছর বয়সী এক নারী। আদালত বাদীর জবানবন্দি নিয়ে পরে আদেশ দিবেন বলে জানিয়েছেন।

আসামিরা হলেন- দক্ষিণখান থানার ওসি শিকদার মো. শামীম হোসেন, এসআই আবদুল কাদির, আরিফ হোসেন, এএসআই মো. আ. রুপ, নুরুল ইসলাম, কনস্টেবল মনিরুল ইসলাম, জয়েন উদ্দিন, মো. তৌফিক, রুনা আক্তার ও ইয়াসমিন আক্তার এবং সৎ মা মার্জিয়া আক্তার (পুতুল)।

বাদী পক্ষের আইনজীবী ইমরুল হাসান সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, বাদীর সাথে তার সৎ মায়ের ছেলে ইকবাল হোসেনের (স্বজল) জমি-জমা নিয়ে মামলা-মোকাদ্দমা চলছে। সম্প্রতি আদালত মার্জিয়া আক্তারকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেন। এটা জানতে পেরে মার্জিয়া বাদী ও তার পরিবারকে উচ্ছেদের জন্য ফ্ল্যাটে ছুটে যান।

ওসি শিকদার মো. শামীম হোসেন মামলা সম্পর্কে অবগত থাকা অবস্থায় মার্জিয়ার কাছ থেকে উৎকোচ গ্রহণ করে বাদীর বাসায় দরজা ভেঙ্গে প্রবেশ করেন। ওসি বাদীকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। বাদীর পোশাক খুলে বিবস্ত্র করে বুকে, পেটে, যৌনাঙ্গে চাপাচাপি করে লাঞ্ছিত করেন।

এসআই আবদুল কাদির বাদীকে নির্যাতন করেন। ওসি সেখানে উপস্থিত এক সাক্ষীকেও শ্লীলতাহানি করেন। বাদী এবং সাক্ষীকে তখনই বের হয়ে যেতে বলেন ওসি। বের না হলে গণধর্ষণের হুমকিও দেন।

এসময় বাদীর ১১ বছরের কন্যা চিৎকার করলে ওসি ৩ নং সাক্ষীর গালে জোরে থাপ্পড় মেরে রক্তাক্ত করেন। বাদীর স্বামী ও ২ নং সাক্ষীর স্বামী মোবাইলে ভিডিও ধারণ করতে থাকাবস্থায় ওসির নির্দেশে অপর সকল পুলিশ সদস্য তাদের মোবাইল কেড়ে নেয় এবং তাদের মারধর করে।

পরে পুলিশ তাদের ভ্যানে  উঠিয়ে তাদের দিকে বন্দুক তাক করে রাখে। এ সময় সকল আসামিরা দুই সাক্ষীকে বিবস্ত্র অবস্থায় টানা হেঁচড়া করে বাসার নীচতলায় নামিয়ে মেইন গেটে তালা দিয়ে বাদী ও অপর সাক্ষীদের বাসা থেকে উচ্ছেদ করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। যাওয়ার সময় হুমকি দেয় বেশি বাড়াবাড়ি করলে ওই দুইজনকে ক্রসফায়ার দিবে। পরে ওসি মার্জিয়াকে দিয়ে উল্টো বাদী ও সাক্ষীদের বিরুদ্ধে দক্ষিণখান থানায় মামলা দায়ের করান। এ অবস্থায় নিরুপায় হয় তিনি আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন।

এমআই/

আইন ও অপরাধ: আরও পড়ুন

আলোচিত সংবাদ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ