জি কে শামীমের জামিন প্রত্যাহার



জি কে শামীমের জামিন প্রত্যাহার

পরিবর্তন প্রতিবেদক | clock৪:১৩ অপরাহ্ণ, মার্চ ০৮,২০২০

জি কে শামীমের জামিন প্রত্যাহার

অস্ত্র ও মাদকের মামলায় বিতর্কিত ঠিকাদার জি কে শামীমের জামিন মঞ্জুর করে হাইকোর্টের দেওয়া আদেশ প্রত্যাহার করা হয়েছে।

আজ রোববার বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি এস এম মুজিবুর রহমান সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ আগের আদেশ প্রত্যাহার করে এ আদেশ দেন।

এর ফলে অস্ত্র মামলায়ও জি কে শামীমের জামিন আর থাকল না।

গত ৬ ফেব্রুয়ারি ওই মামলায় জি কে শামীমকে ছয় মাসের জামিন দেন একই বেঞ্চ।

পরে বিচারপতি মো রেজাউল হক ও বিচারপতি ভীষ্মদেব চক্রবর্তীর হাইকোর্ট বেঞ্চও মাদক মামলায় জামিন আদেশ প্রত্যাহার করে নেন।

ওই মামলায় গত ৪ ফেব্রুয়ারি জি কে শামীম হাইকোর্ট থেকে জামিন পান। এই জামিনের বিষয়টি গতকাল (শনিবার) জানাজানি হয়।

অস্ত্র আইনের মামলায় জামিন প্রদানকারী বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি এস এম মুজিবুর রহমান বেঞ্চের সম্পূরক কার্যতালিকায় বিষয়টি আজ আদেশের জন্য ওঠে। শুনানি নিয়ে আদালত জামিন প্রত্যাহার করে আদেশ দেন।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন, ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এফ আর খান। জি কে শামীমের পক্ষে ছিলেন, আইনজীবী মমতাজউদ্দিন আহমদ মেহেদী ও শওকত ওসমান।

দুপুর ১টার দিকে রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এফ আর খান আদালতে বলেন, এ মামলার শুনানিকালে আমাদের কোন নথি দেওয়া হয়নি। নামের বিভ্রাট করে এবং প্রতারণা করে জামিন নিয়েছেন। আসামি জি কে শামীম নামে পরিচিত। কিন্তু কার্য তালিকায় শুধু এস এম গোলাম রয়েছে। এ কারণে আমরা বুঝতে পারিনি।

এ সময় আসামি জি কে শামীমের আইনজীবী মমতাজ উদ্দিন আহমেদ মেহেদী আদালতে বলেন, শুনানি করে জামিন হয়েছে। আসামি জি কে শামীমের বৈধ লাইসেন্স আছে। নবায়ন না করার অপরাধে তাকে মামলা দেওয়া হয়েছে। এ মামলায় সর্বোচ্চ শাস্তি হলো ৬ মাস। কিন্তু আসামি চার মাস যাবত কারাগারে রয়েছে। আদালতে কার্য তালিকায় এবং মামলার নথিতে আসামমির নাম এস এম গোলাম কিবরিয়া শামীম রয়েছে। পরে আদালত আসামির জামিন আদেশ প্রত্যাহার করে নেন।

জি কে শামীমের বিরুদ্ধে আরও দুটি মামলা আছে।

গত বছরের ২০ সেপ্টেম্বর রাজধানীর গুলশান এলাকা থেকে গ্রেপ্তার হন জি কে শামীম। তার বিরুদ্ধে অস্ত্র, মাদক, অর্থ পাচার ও জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে মোট চারটি মামলা হয়।

ওএস/এসবি

আইন ও অপরাধ: আরও পড়ুন

আলোচিত সংবাদ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ